অধ্যায় ৮ ~ সুসংবাদ!

আপনি হয়তো এতক্ষণে বুঝতে পেরেছেন যে আপনি একটি শোচনীয় পরিস্থিতিতে আছেন। আমরা মিথ্যা কথা বলি এবং প্রতারণা করি। আমরা অবাধ্য এবং অবিশ্বস্ত। আমরা অন্য লোকেদের আঘাত করি এবং বারংবার আমাদের সৃষ্টিকর্তাকে অসম্মান করি। আমাদের গুনাহ্গাড় অবস্থায় আল্লাহর কিছু করার থাকে না। আমাদের কাজের জন্য তাঁকে অবশ্যই শাস্তি দিতে হবে। আমরা তাঁকে তাঁর প্রাপ্য সম্মান দিতে অক্ষম। এমনকি আপনি যদি একটি ভাল জীবনযাপন করার যথাসাধ্য চেষ্টা করেন, তবুও আপনার অতীতের ভুলগুলি আপনাকে তাড়িত করবে।

কেননা সকলেই গুনাহ্‌ করেছে এবং আল্লাহ্‌র গৌরব-বিহীন হয়েছে 1

আমাদের সম্মানের অভাব এবং সমস্ত খারাপ বিষয়ের কারণে আমরা আল্লাহর মুখোমুখি হতে পারি না। আমরা অকেজো এবং রূহানিক অর্থে আমাদের মৃত ঘোষণা করা হয়েছে।

কেননা গুনাহ্‌র বেতন মৃত্যু 2  

শেষ পর্যন্ত আমাদের আচরণই মৃত্যুর দিকে নিয়ে যাবে। আমাদের জাগতিক মৃত্যু। কিন্তু মৃত্যু আমাদের রূহানিক অস্তিত্বের শেষ নয়। আচরণের হিসাব দিতে আমাদের ডাকা হবে।

কিন্তু তোমার কঠিন ভাব এবং অপরিবর্তনশীল অন্তর অনুসারে তুমি তোমার নিজের জন্য সেই গজবের দিনের জন্য এমন শাস্তি সঞ্চয় করছো, যখন আল্লাহ্‌র ন্যায়বিচার প্রকাশ পাবে। তিনি তো প্রত্যেক মানুষকে তার কাজ অনুযায়ী ফল দেবেন3

মৃত্যু আপনার আচরণের ফল। মৃত্যু আপনার জীবনকে তাড়িয়ে নিয়ে যায়। যতদিন আপনি বেঁচে আছেন, ততদিন আপনার আল্লাহর সাথে মিলিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

আল্লাহ্ এটি চান না

এটা প্রায় অবিশ্বাস্য যে আল্লাহ্ আপনার আচরণ সত্ত্বেও আপনাকে ভালবাসেন। আমি আশা করি আপনার অতীত জীবনের জন্য আপনি অনুতপ্ত। আমি আশা করি আপনি আপনার এবং সৃষ্টিকর্তার মধ্যেকার বিষয়গুলিকে সঠিক করার জন্য একটি সমাধান খুঁজে পেতে চান৷

আপনি যদি এই বিষয়ে চিন্তা করেন তবে বুঝতে পারবেন যে আপনি ব্যক্তিগতভাবে ওই সকল বিষয়গুলো ঠিক করতে পারবেন না। আপনি যদি আপনার অতীতের আচরণের জন্য অনুশোচনা করেন এবং সৎ হন তবে বুঝবেন যে আপনি ভবিষ্যতে আরও ভুল করবেন।

আল্লাহর পরিত্রাণের পরিকল্পনা

তবুও আল্লাহ্ মানুষকে ভালবাসেন, যদিও আমরা অযোগ্য।

প্রথম থেকেই তিনি আমাদের এবং তাঁর মধ্যে একটি সেতু বন্ধন তৈরি করার পরিকল্পনা করেছিলেন। এই পরিকল্পনা আমাদের জন্য তাঁর অবিশ্বাস্যভাবে মহান ভালবাসা প্রকাশ করে।

প্রথমে, আমি আপনাকে সংক্ষেপে আল্লাহর পরিকল্পনা সম্পর্কে বলব। বাকি অধ্যায়ে, আমি আপনাকে এ বিষয়ে আরও বলব।

~ আল্লাহর পরিত্রাণের পরিকল্পনা ~

ক্ষমা ছাড়া, আমাদের ভবিষ্যত আশাহীন। আমরা আমাদের সৃষ্টিকর্তাকে অসম্মান করেছি এবং রূহানিকভাবে আমাদের মৃত বলে ঘোষণা করা হয়েছে। আমরা অন্ধকারে বাস করি, আল্লাহ্ থেকে অনেক দূরে। কিন্তু যে উদ্দেশ্য নিয়ে তিনি আমাদের তৈরি করেছেন সেভাবে বসবাস করি না। সৃষ্টির শুরু থেকেই আমাদের ধ্বংসের হাত থেকে বাঁচাতে আল্লাহর ব্যবস্থা করতে হয়েছিল। তাই তিনি স্বয়ং পৃথিবীতে এসেছেন। তিনি মানুষ হলেন এবং তাঁর নাম ছিল ঈসা মসীহ্। তাঁকে আল্লাহর পুত্র (প্রতিনিধি)ও বলা হয়। তিনিই একমাত্র ব্যক্তি যিনি কখনও পাপ করেননি এবং আল্লাহ্কে অসম্মান না করে বসবাস করেছেন। তিনি তা করতে পেরেছেন, কারণ তিনি ছিলেন আল্লাহ্। তার পরিত্রাণের পরিকল্পনা একই সাথে অবিশ্বাস্য এবং প্রেমময়। তিনি সেবা করার জন্য পৃথিবীতে আসেননি। তিনি আমাদের অগৌরবের এবং অসম্মানজনক আচরণের জন্য শাস্তি দিতে আসেননি।  তিনি আমাদের প্রতি তাঁর মহান ভালবাসা দেখাতে এসেছিলেন৷ এমন না যে তাঁর ভালবাসা আমাদের প্রাপ্য বরং তিনি প্রেমময় এবং আমাদের প্রতি সহানুভূতিশীল বলেই এমনটি হয়েছে। তিনি নিজেকে মানুষের দ্বারা অপমানিত হতে দিয়েছেন। এমনকি নিজেকে ক্রুশে মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত হতে দিয়েছেন। ক্রুশে তিনি শুধুমাত্র অসহনীয় শারীরিক যন্ত্রণা ভোগ করেননি, তিনি আল্লাহর ক্রোধ ও বিচারও বহন করেছিলেন। তিনি আমাদের শাস্তি ভোগ করেছেন। ক্রুশে তিনি অনুভব করেছিলেন যে আল্লাহর দ্বারা পরিত্যক্ত হওয়ার অনুভূতি কেমন ছিল। তিনি মৃত্যুর চেয়ে মহান এবং শক্তিশালী প্রমাণ করার জন্য, তিন দিন পর কবর থেকে উঠলেন। এইভাবে তিনি মৃত্যুকে শক্তিহীন করে দিয়েছিলেন। আল্লাহর সম্মান পুনরুদ্ধার করা হয়েছিল। এটা আমাদের জন্য আল্লাহর মহান উপহার। তাঁর পুত্র ঈসা মসীহের মৃত্যু ও পুনরুত্থানের মাধ্যমে আমাদের সমস্ত পাপ ক্ষমা করা হয়েছে এবং মুছে ফেলা হয়েছে। আপনি যদি বিশ্বাস করেন যে ঈসা মসীহ্ আপনার জন্য মারা গিয়েছেন এবং পুনরুত্থিত হয়েছেন, তাহলে আপনি সমস্ত নোংরামি থেকে পরিষ্কৃত হবেন। আপনি আল্লাহর করুণা পাবেন, আপনার পাপের কারণে আপনাকে আর দায়ী করা হবে না এবং আপনাকে ধার্মিক ঘোষণা করা হবে। আপনি যদি আপনার পাপ, নোংরামি এবং আল্লাহকে অসম্মান করার জন্য অনুতপ্ত হন, তাহলে আপনি রক্ষা পেতে পারেন৷ আপনি যদি আল্লাহর পুত্র ঈসা মসীহের ক্ষমার উপহার গ্রহণ করেন, তাহলে আপনি ঈসার মাধ্যমে অপরাধ ও মৃত্যু থেকে মুক্ত হবেন। আপনার সমস্ত নোংরামি ধুয়ে পরিষ্কার করা হবে। রূহানিকভাবে, আপনি তাঁর সাথে মারা যাবেন এবং আবার জন্মগ্রহণ করবেন। আপনি একটি নতুন (রূহানিক) জীবন পাবেন। আপনি আল্লাহর সাথে এবং তাঁর জন্য বেঁচে থাকবেন। তাঁর সাহায্যে, আপনি হৃদয় থেকে তাঁর সেবা করতে সক্ষম হবেন। তিনি আপনাকে তাঁর ইচ্ছা অনুযায়ী জীবনযাপন করতে সাহায্য করবেন। তাঁর ভালবাসা থেকে, আপনি আপনার চারপাশে অন্যদের সেবা করতে পারেন, ঠিক যেমন তিনি করেছিলেন। এমনকি আপনি আল্লাহর সন্তান বলে সম্মান পাবেন। আপনি অনন্ত জীবন পাবেন। ভবিষ্যতে, আপনি বেহেশতে আল্লাহর সাথে বসবাস করতে পারবেন। এই জীবনে, তিনি তাঁর পবিত্র আত্মার মাধ্যমে আপনার সাথে থাকবেন। কিন্তু আপনি যদি ঈসা মসীহের মাধ্যমে আল্লাহর দেয়া উপহার প্রত্যাখ্যান করেন, তাহলে আপনাকে অবশ্যই আপনার কাজ এবং অবাধ্যতার পরিণতি বহন করতে হবে।

আমি বুঝতে পারছি, এই সংক্ষিপ্ত সারাংশের মাধ্যমে অনেক প্রশ্ন জমা হচ্ছে। এই কারণেই আমি আপনাকে আল্লাহর পরিত্রাণের পরিকল্পনা সম্পর্কে আরও বিস্তারিতভাবে বলতে চাই।

প্রথমে কি ঘটেছিল

সৃষ্টির শুরু থেকেই এটা স্পষ্ট ছিল যে মানুষ আর কখনও আল্লাহর কাছে আসতে পারবে না, কারণ সে স্বাধীনভাবে তার সৃষ্টিকর্তার অবাধ্য হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আমরা রূহানিক অন্ধকারে বসবাস করার জন্য ধ্বংসপ্রাপ্ত ছিলাম।

কিতাবুল মোকাদ্দসে আপনি দেখতে পারবেন যে ইতিহাসের মাধ্যমে একজন নাজাতদাতার আগমন ঘোষণা করা হয়েছে। সৃষ্টির পর থেকে প্রায় ২,০০০ বছর আগে, ভবিষ্যদ্বাণী করা হয়েছিল যে একজন পরিত্রাতা আসবেন মানুষকে তাদের পরিনতি থেকে মুক্ত করতে। এই নাজাতদাতাকে মশীহ বলা হত (অর্থাৎ অভিষিক্ত, অথবা রাজা)4

আল্লাহ্ কি পৃথিবীতে নেমে এসেছেন?

আমি মনে করি এগিয়ে যাওয়ার আগে, আমার আরও একটু ব্যাখ্যা করা দরকার। এটা অবাস্তব মনে হয় যখন আপনি পড়েন যে মহান সৃষ্টিকর্তা আল্লাহ্ পৃথিবীতে নেমে এসেছেন। কিতাবুল মোকাদ্দসে, প্রেরিত ইউহোন্না এটিকে এভাবে বর্ণনা করেছেন:

আর সেই কালাম মানব দেহে মূর্তিমান হলেন এবং আমাদের মধ্যে প্রবাস করলেন, আর আমরা তাঁর মহিমা দেখলাম, যেমন পিতা থেকে আগত একজাতের মহিমা; তিনি রহমতে ও সত্যে পূর্ণ।5

মানুষের জন্য এটা প্রায় অবিশ্বাস্য যে মহান সৃষ্টিকর্তা মানুষ রূপে এসেছেন। বিষয়টিকে আরো বুঝতে হলে প্রথমে আল্লাহ্ সম্পর্কে আরও জানতে হবে। কেবল এক আল্লাহ্ আছেন। কিন্তু কিতাবুল মোকাদ্দসে আপনি পিতা আল্লাহ্, পুত্র আল্লাহ্ এবং পবিত্র আত্মা আল্লাহ্ সম্পর্কে পড়েছেন। তারা তিনজন পৃথক ব্যক্তি, কিন্তু একসঙ্গে তারা এক আল্লাহ্। এটি আমাদের বোধগম্যতার বাইরে, কারণ মানব জগতে এর সাথে তুলনা করার মতো কিছুই নেই।

blank

কিছু লোক এটিকে পানির সাথে তুলনা করার চেষ্টা করে। পানি বাষ্প (গ্যাস) হতে পারে, তরল হতে পারে আবার জমা হলে বরফ (কঠিন) হতে পারে। আরেকটি উদাহরণ হল একটি ক্লোভার পাতা, যা তিনটি ছোট পাতা নিয়ে গঠিত। তারা একসাথে একটি পাতা গঠন করে। কিন্তু আপনি যার সাথেই তুলনা করার চেষ্টা করুন না কেন, কিছুই আসলে আল্লাহর প্রকৃতি বর্ণনা করতে পারে না।

‘আল্লাহর পুত্র’ নামটি প্রভু ঈসা মসীহের খোদাত্বকে নির্দেশ করে। তাঁকে কালামও বলা হয়, যা বিশ্বের সৃষ্টিকে বোঝায়, আল্লাহর কথার দ্বারা সমস্ত সৃষ্টি হয়েছিল।

আমাদের জন্য আল্লাহর প্রকৃতির দিকগুলি বোঝা সবচেয়ে কঠিন। আপনি যদি আরও জানতে চান, এই প্রবন্ধগুলি পড়তে পারেন আল্লাহর কি পুত্র থাকতে পারে? এবং আল্লাহ্ কি একের মধ্যে ৩ হতে পারেন? (এই পৃষ্ঠার নীচে লিঙ্কগুলি দেয়া আছে)

তিনি এসেছিলেন একজন শিশু হয়ে

নাজাতদাতার আগমন পৃথিবীর শুরু থেকেই ভবিষ্যদ্বাণী করা হয়েছিল। তিনি শিশু হিসাবে জন্মগ্রহণ করেন। তবে তিনি সাধারণ শিশু ছিলেন না।

ঈসা মসীহের জন্ম এভাবে হয়েছিল। তাঁর মা মরিয়ম ইউসুফের প্রতি বাগ্‌দত্তা হলে তাঁদের সহবাসের আগে জানা গেল, পাক-রূহ্‌ের শক্তিতে তিনি গর্ভবতী হয়েছেন। 6

আল্লাহর আত্মার শক্তিতে মরিয়ম গর্ভবতী হয়েছিলেন। তিনি একজন কুমারী ছিলেন, কিন্তু আল্লাহর আত্মার শক্তিতে তিনি সন্তান ধারণ করেছিলেন। তার সন্তান শুধু সম্পূর্ণ মানুষই ছিলেন না, সম্পূর্ণ আল্লাহ্ও ছিলেন। তাঁর নাম ছিল ঈসা, যার অর্থ ‘নাজাতদাতা’।

পরে বালকটি বেড়ে উঠতে ও বলবান হতে লাগলেন, জ্ঞানে পূর্ণ হতে থাকলেন; আর আল্লাহ্‌র রহমত তাঁর উপরে ছিল। লূক 2:40 BACIB 

পরে ঈসা জ্ঞানে ও বয়সে এবং আল্লাহ্‌র ও মানুষের কাছে অনুগ্রহে বৃদ্ধি পেতে থাকলেন। লূক 2:52 BACIB

ঈসা এবং অন্যান্য শিশুদের মধ্যে প্রধান পার্থক্য ছিল যে ঈসা কখনও পাপ করেননি।

পিতর, একজন প্রত্যক্ষদর্শী, এটি এভাবে বর্ণনা করেছেন:

“তিনি গুনাহ্‌ করেন নি, তার মুখে কোন ছলও পাওয়া যায় নি”। 23তিনি অপমানিত হলে প্রতিউত্তরে অপমান করতেন না; দুঃখভোগের সময় প্রতিশোধ নেবার ভয়ও দেখান নি, কিন্তু যিনি ন্যায় অনুসারে বিচার করেন, তাঁর উপর আস্থা রাখতেন। ১ পিতর 2:22-23 BACIB

ঈসা মসীহের সংবাদ

যীশু তাঁর পাবলিক পরিচর্যা শুরু করেছিলেন যখন তিনি প্রায় ত্রিশ বছর বয়সে ছিলেন।7 প্রায় তিন বছরের সংক্ষিপ্ত সময়ের মধ্যে, ঈসা চারপাশে ভ্রমণ করেছিলেন এবং লোকেদের শিক্ষা দিয়েছিলেন। তার বার্তা স্পষ্ট ছিল: আপনার পাপপূর্ণ, স্বার্থপর জীবনের জন্য তওবা করুন এবং আল্লাহর কাছে ফিরে আসুন।

সেই সময় থেকে ঈসা তবলিগ করতে আরম্ভ করলেন; বলতে লাগলেন, ‘মন ফিরাও, কেননা বেহেশতী-রাজ্য সন্নিকট’। মথি 4:17 BACIB

তিনি আরও স্পষ্ট করে বলেছিলেন যে নির্দিষ্ট নিয়ম এবং ঐতিহ্য অনুসারে জীবনযাপন করে আল্লাহর সেবা করা যায় না। সঠিক মনোভাব এবং হৃদয় থেকে আল্লাহর সেবা করাটাই গুরুত্বপূর্ণ। ঈসা ধর্মীয় নেতাদের ভন্ড আচরণের জন্য তওবা করতে বলেছিলেন।

ভণ্ডরা, নবী ইশাইয়া তোমাদের বিষয়ে বিলক্ষণ ভবিষ্যদ্বাণী বলেছেন, “এই লোকেরা মুখের কথায়ই আমার সমাদর করে, কিন্তু এদের অন্তঃকরণ আমার কাছ থেকে দূরে থাকে; এবং এরা অনর্থক আমার এবাদত করে, মানুষের আদেশমালা ধর্মসূত্র বলে শিক্ষা দেয়।”মথি 15:7-9 BACIB

পৃথিবীতে থাকা কালিন তিনি অনেক অলৌকিক কাজ করেছিলেন এবং অন্ধ, কুষ্ঠ ও অন্যান্য রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের সুস্থ করেছিলেন।8

ঈসা তাঁর সম্পর্কে ইশাইয়া কিতাবের ৩৫ অধ্যায়ের একটি ভবিষ্যতবানীর কথা তুলে ধরেছিলেন:  

তৎকালে অন্ধদের চোখ খোলা যাবে, আর বধিরদের কান মুক্ত হবে। তৎকালে খঞ্জ হরিণের মত লাফ দেবে, ও বধিরদের কণ্ঠ আনন্দগান করবে; কেননা মরুভূমিতে পানি উৎসারিত হবে, ও মরুভূমির নানা স্থানে প্রবাহিত হবে।9

তবুও, এমন অনেক লোক ছিল যারা বিশ্বাস করতে চায়নি যে তিনি দীর্ঘ প্রতিশ্রুত নাজাতদাতা ছিলেন।10

আমি তোমাদেরকে বলছি, তা নয়; বরং যদি মন না ফিরাও, তোমরা সকলেই তেমনি বিনষ্ট হবে। লূক 13:5 BACIB 

তিনি একদল সাহাবীদের জড়ো করলেন। তিনি তাদের আল্লাহর রাজ্য সম্বন্ধে এবং আল্লাহর দৃষ্টিতে যা গুরুত্বপূর্ণ সেই শিক্ষা দিয়েছিলেন: বিশ্বাস করা যে তিনি আল্লাহর পুত্র এবং জগতের নাজাতদাতা। অতএব, আমাদের উচিত আল্লাহ্কে ভালবাসা, তাঁর জন্য বেঁচে থাকা এবং প্রতিবেশীকে নিজেদের মতো করে ভালবাসা।

তখন তারা তাঁকে বললো, আমরা যেন আল্লাহ্‌র কাজ করতে পারি, এজন্য আমাদেরকে কি করতে হবে? জবাবে ঈসা তাঁদেরকে বললেন, আল্লাহ্‌র কাজ এই, যেন তাঁতে তোমরা ঈমান আনো, যাঁকে তিনি প্রেরণ করেছেন।11 12

তিনি তাকে বললেন, “তোমার সমস্ত অন্তঃকরণ, তোমার সমস্ত প্রাণ ও তোমার সমস্ত মন দিয়ে তোমার আল্লাহ্‌ প্রভুকে মহব্বত করবে,” এটি মহৎ ও প্রথম হুকুম। আর দ্বিতীয়টি এর মত; “তোমার প্রতিবেশীকে নিজের মত মহব্বত করবে।” মথি 22:37-39 BACIB

কিন্তু তোমরা প্রথমে তাঁর রাজ্য ও তাঁর ধার্মিকতার বিষয়ে চেষ্টা কর, তা হলে ঐ সমস্ত দ্রব্যও তোমাদেরকে দেওয়া হবে। মথি 6:33 BACIB

তাঁর কর্মভার অর্পন

ঈসা আমাদের থামিয়ে দিতে পৃথিবীতে আসেননি। তিনি মহান ও পরাক্রমশালী সৃষ্টিকর্তা হিসেবে সেবা করতে আসেননি। তিনি আমাদের রক্ষা করতে এসেছেন।

কেননা আল্লাহ্‌ দুনিয়ার বিচার করতে পুত্রকে দুনিয়াতে প্রেরণ করেন নি, কিন্তু দুনিয়া যেন তাঁর দ্বারা নাজাত পায় সেজন্য তিনি তাঁকে প্রেরণ করেছেন। ইউহোন্না 3:17 BACIB

তিনি আমাদের (রূহানিক) মৃত্যু থেকে রক্ষা করতে এসেছিলেন। তিনি আল্লাহ্ ও মানুষের মধ্যে সম্পর্ক পুনরুদ্ধার করতে এসেছিলেন। তিনি আমাদের পাপের ক্ষমা সম্ভব করতে এসেছিলেন।

ইনি আমাদের গুনাহের জন্য নিজেকে দান করলেন যেন আমাদের আল্লাহ্‌ ও পিতার ইচ্ছানুসারে আমাদের এই উপস্থিত মন্দ যুগ থেকে উদ্ধার করেন। 5যুগপর্যায়ের যুগে যুগে আল্লাহ্‌র মহিমা হোক। আমিন। গালাতীয় 1:4-5 BACIB

এই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে, ঈসাকে আমাদের পাপের শাস্তি বাতিল করতে হয়েছিল। আমরা মৃত্যুদণ্ডের যোগ্য, কারণ আমরা আমাদের আচরণ এবং কাজ দিয়ে আল্লাহ্কে অসম্মান করেছি। আমাদের জন্য মারা যাওয়ার মধ্য দিয়ে ঈসা নিজের উপর সেই শাস্তি নিয়েছিলেন। কারণ তিনি আমাদের পরিবর্তে মারা গিয়েছেন, যার কারণে আমরা আল্লাহ্ আমাদের ধার্মিক বলে ঘোষণা করেন।

তাঁর দুঃখভোগ ও মৃত্যু

ঈসা সঠিকভাবে জানতেন যে, কেন তিনি এই পৃথিবীতে এসেছিলেন। তিনি জানতেন যে তাঁর জন্য কি অপেক্ষা করছে এবং তা তিনি তাঁর শিষ্যদের বলেছিলেন।

সেই সময় থেকে ঈসা তাঁর সাহাবীদেরকে স্পষ্টই বলতে লাগলেন যে, তাঁকে জেরুশালেমে যেতে হবে এবং প্রাচীনদের, প্রধান ইমামদের ও আলেমদের কাছ থেকে অনেক দুঃখ ভোগ করতে হবে ও হত হতে হবে, আর তৃতীয় দিনে উঠতে হবে। মথি 16:21 BACIB

খুব বেশি দিন হয়নি যে এই ভবিষ্যদ্বাণী সত্যি হয়েছিল। ধর্মীয় নেতারা তাঁর প্রতি ক্লান্ত হয়ে পড়েছিল। তারা বুঝতে পেরেছিল যে তাদের সম্মান ও ক্ষমতা হুমকির সম্মুখীন হয়েছে এবং তার থেকে মুক্তির উপায় খুঁজছিল। তারা তাঁকে গ্রেফতার করে মহাযাজকের (সে সময়ের রূহানিক নেতা) কাছে নিয়ে যায়। তাঁকে অনেক কিছুর জন্য মিথ্যা অভিযুক্ত করা হয়েছিল। শেষ পর্যন্ত তারা তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ খুঁজে পেয়েছিল।

কিন্তু তিনি নীরব রইলেন, কোন জবাব দিলেন না। আবার মহা-ইমাম তাঁকে জিজ্ঞাসা করলেন, তুমি কি সেই মসীহ্‌, পরমধন্যের পুত্র? 62ঈসা বললেন, আমি সেই; আর তোমরা ইবনুল-ইনসানকে পরাক্রমের ডান পাশে বসে থাকতে ও আসমানের মেঘসহ আসতে দেখবে। মার্ক 14:61-62 BACIB

বিষয়টি উপলব্ধি করার পরিবর্তে তারা তাঁর আসল পরিচয়ের ভিত্তিতে মৃত্যুদণ্ড দেয়।

দেশটি তখন রোমীয়দের দখলে ছিল যার কারণে রোমীয় গভর্নরের কাছে ধর্মীয় নেতাদের অনুমতি চাইতে হয়েছিল যেন ঈসাকে মৃত্যুদণ্ড দিতে পারে।

ইতোমধ্যে ঈসাকে শাসনকর্তার সম্মুখে দাঁড় করানো হল। শাসনকর্তা তাঁকে জিজ্ঞাসা করলেন, তুমি কি ইহুদীদের বাদশাহ্‌? ঈসা তাঁকে বললেন, তুমিই বললে। 12আর যখন প্রধান ইমামেরা ও প্রাচীনবর্গরা তাঁর উপরে দোষারোপ করছিল, তিনি তার কোনই জবাব দিলেন না। মথি 27:11-12 BACIB

গভর্নর পীলাত এমন কোন অভিযোগ খুঁজে পাননি যার জন্য তিনি ঈসাকে মৃত্যুদণ্ড দিতে পারেন, কিন্তু তার কাছে আসা বিশাল জনতা দেখে তিনি ভয় পেয়েছিলেন;

পরে পীলাত আবার জবাবে তাদেরকে বললেন, তবে তোমরা যাকে ইহুদীদের বাদশাহ্‌ বল, তাকে নিয়ে কি করবো? 13তারা পুনর্বার চিৎকার করে বললো, ওকে ক্রুশে দাও। 14পীলাত তাদেরকে বললেন, কেন? এ কি অপরাধ করেছে? কিন্তু তারা ভীষণভাবে চেঁচিয়ে বলতে লাগল, ওকে ক্রুশে দাও। মার্ক 15:12-14 BACIB

পীলাত যখন দেখলেন, তাঁর চেষ্টা বিফল, বরং আরও গোলযোগ হচ্ছে, তখন পানি নিয়ে লোকদের সাক্ষাতে হাত ধুয়ে বললেন, এই ধার্মিক ব্যক্তির রক্তপাতের সম্বন্ধে আমি নির্দোষ, তোমরাই তা বুঝবে। মথি 27:24 BACIB

ধর্মীয় নেতারা যীশুকে একটি পাহাড়ে নিয়ে গিয়েছিলেন, যেখানে তাকে একটি ক্রুশে পেরেক দেওয়া হয়েছিল। একটি ক্রস মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার সবচেয়ে ভয়ঙ্কর এবং অপমানজনক উপায়গুলির মধ্যে একটি। যীশু প্রতিরোধ না করেই লজ্জা ও যন্ত্রণা সহ্য করেছিলেন, কারণ এটি ছিল ঈশ্বরের পরিকল্পনা অনুসারে।

কিন্তু ঈসা যা সহ্য করেছিলেন তা শুধু লজ্জা কিংবা শারীরিক কষ্ট ছিল না। ক্রুশে, তিনি আমাদের পাপের জন্য আল্লাহর সম্পূর্ণ শাস্তি গ্রহণ করেছিলেন! আল্লাহর ক্রোধ তাঁর উপর ঢেলে দেওয়া হয়েছিল। একজন মানুষ হিসেবে তিনি আল্লাহকে ছাড়া একা অনুভব করেছেন। এটা ছিল আমাদের পাপপূর্ণ আচরণের জন্য আমাদের প্রাপ্য শাস্তি।

পরে বেলা ছয় ঘটিকা থেকে নয় ঘটিকা পর্যন্ত সমুদয় দেশ অন্ধকারময় হয়ে রইলো। 34আর নয় ঘটিকার সময়ে ঈসা উচ্চরবে ডেকে বললেন, এলোই, এলোই, লামা শবক্তানী; অনুবাদ করলে এর অর্থ এই, ‘আল্লাহ্‌ আমার, আল্লাহ্‌ আমার, তুমি কেন আমায় পরিত্যাগ করেছ’? মার্ক 15:33-34 BACIB

যখন তিনি ক্রুশে মারা গিয়েছিলেন, তাঁর রক্ত প্রবাহিত হয়েছিল, তখন তিনি আমাদের পাপের জন্য সম্পূর্ণ মূল্য পরিশোধ করেছিলেন।

এর পরে তিনি তাঁর আত্মাকে ত্যাগ করেন এবং মারা যান। ক্রুশবিদ্ধকরণের দায়িত্বরত একজন সৈন্য ঈসাকে বর্শা দ্বারা আঘাত করেছিল যেন নিশ্চিত হতে পারে যে ঈসা মারা গিয়েছেন। ঈসার বন্ধুরা তাঁকে কবর দিতে অনুরোধ করার পর তাঁকে একটি পাথরের সমাধিতে রাখা হয়েছিল।

আপনি এই প্রবন্ধগুলিতে এই সম্পর্কে আরও পড়তে পারেন ঈসা কি সত্যিই মারা গিয়েছিলেন? এবং ঈসা কি সত্যিই সেই ব্যক্তি ছিলেন, যিনি ক্রুশে ঝুলিয়েছিলেন? (এই পৃষ্ঠার নীচে দেখুন)

মৃত্যুর মাধ্যমে ঈসা মসীহ্ বিশ্বকে দেখিয়েছিলেন যে আমরা আল্লাহর সম্মানকে কতটা গুরুতর আঘাত করেছি। মৃত্যুর মাধ্যমে তিনি এটাও দেখিয়েছিলেন যে আল্লাহ্ আমাদের কতটা ভালবাসেন।

ঈসার বন্ধুরা তাঁকে কবর দিতে বলেছিল এবং তাঁকে একটি পাথরের সমাধিতে স্থাপন করা হয়েছিল।

blank

তাঁর পুনরুত্থান

কিন্তু যিশুর মৃত্যুই শেষ ছিল না। ঈশ্বর দেখিয়েছেন তিনি মৃত্যুর চেয়েও শক্তিশালী। তিন দিন পর যীশু কবর থেকে উঠলেন এবং তাঁর শিষ্যদের এবং মানুষের বিশাল দলকে দেখা দিলেন। 13

তিনি তাঁর দুঃখভোগের পরে তাঁদের কাছে অনেক প্রমাণ দ্বারা দেখালেন যে, তিনি জীবিত আছেন। ফলত তিনি চল্লিশ দিন যাবৎ তাঁদেরকে দর্শন দিলেন এবং আল্লাহ্‌র রাজ্যের বিষয় নানান কথা বললেন।প্রেরিত 1:3 BACIB

তাঁর মৃত্যু এবং পুনরুত্থানের মাধ্যমে তিনি আমাদের জন্য নতুন জীবন সম্ভব করেছেন। যদি আমরা তাঁর পরিত্রাণের পরিকল্পনায় বিশ্বাস করি, তাহলে আমরা যে অবস্থায় ছিলাম সে অবস্থা থেকে রূহানিকভাবে তাঁর সাথে মৃত্যুবরণ করি এবং আবার জন্ম নিই। আমরা নতুন জীবন পাব, কারণ তিনি আমাদের পাপের শাস্তি বহন করেছেন। আমরা আবার আল্লাহর মুখোমুখি হতে পারি।

ঈসা তাঁকে বললেন, আমিই পুনরুত্থান ও জীবন; যে আমার উপর ঈমান আনে, সে মরলেও জীবিত থাকবে; আর যে কেউ জীবিত আছে এবং আমার উপর ঈমান আনে, সে কখনও মরবে না; এই কথা কি বিশ্বাস কর? ইউহোন্না 11:25-26 BACIB

আমাদের শারীরিক মৃত্যু শেষ পর্যন্ত থাকবে না। আল্লাহর সঙ্গে অনন্ত জীবনের শুরু হয়ে গিয়েছে।

যে কেউ বিশ্বাস করে যে, ঈসা-ই সেই মসীহ্‌ সে আল্লাহ্‌ থেকে জাত; এবং যে জন্মদাতাকে মহব্বত করে সে তাঁর মাধ্যমে জাত ব্যক্তিকেও মহব্বত করে। ১ ইউহোন্না 5:1 BACIB

কারণ আল্লাহ্‌ দুনিয়াকে এমন মহব্বত করলেন যে, তাঁর এক জাত পুত্রকে দান করলেন, যেন যে কেউ তাঁতে ঈমান আনে সে বিনষ্ট না হয়, কিন্তু অনন্ত জীবন পায়। ইউহোন্না 3:16 BACIB

মৃতদের মধ্য থেকে পুনরুত্থানের পর, ঈসা তাঁর শিষ্যদের কাছে বহুবার দেখা দিয়েছিলেন। তাঁর শিষ্যদের উপস্থিতিতে তিনি বেহেশতে তাঁর পিতার কাছে ফিরে যান।

এই কথা বলবার পর তিনি তাঁদের দৃষ্টিতে ঊর্ধ্বে নীত হলেন এবং একখানি মেঘ তাঁকে তাঁদের দৃষ্টিপথের আড়ালে নিয়ে গেল। 10তিনি যাচ্ছেন, আর তাঁরা আসমানের দিকে একদৃষ্টে চেয়ে আছেন, এমন সময়ে দেখ, সাদা কাপড় পরা দু’জন পুরুষ তাঁদের কাছে দাঁড়ালেন; 11আর তাঁরা বললেন, হে গালীলীয় লোকেরা, তোমরা এখানে দাঁড়িয়ে আসমানের দিকে তাকিয়ে রয়েছ কেন? এই যে ঈসা তোমাদের কাছ থেকে বেহেশতে ঊর্ধ্বে নীত হলেন, তাঁকে যেভাবে বেহেশতে তুলে নেওয়া হল সেভাবে তিনি ফিরে আসবেন।  প্রেরিত 1:9-11 BACIB

blank

আমাদের ভবিষ্যৎ

আমরা আমাদের শাস্তি থেকে মুক্ত হয়েছি এবং আল্লাহর সাথে সম্পর্ক পুনরুদ্ধার করা যেতে পারে।

আল্লাহ্‌র দেওয়া সেই ধার্মিকতা ঈসা মসীহে ঈমান দ্বারা যারা ঈমান আনে তাদের সকলের প্রতি বর্তে— কারণ প্রভেদ নেই; রোমীয় 3:22 BACIB

আমরা যদি আমাদের পাপাচরণের জন্য অনুশোচনা করি এবং তাঁর ক্ষমা গ্রহণ করি, তাহলে একটি নতুন (রূহানিক) জীবন শুরু করতে পারি। রূহানিক অর্থে, আমরা পুনরায় জন্মগ্রহণ করি।

জবাবে ঈসা তাঁকে বললেন, সত্যি সত্যি, আমি তোমাকে বলছি, নতুন জন্ম না হলে কেউ আল্লাহ্‌র রাজ্য দেখতে পায় না।  ইউহোন্না 3:3 BACIB 

তারা রক্ত থেকে নয়, দেহের কামনা-বাসনা থেকে নয়, মানুষের ইচ্ছা হতেও নয়, কিন্তু আল্লাহ্‌ থেকে জাত। ইউহোন্না 1:13 BACIB

আমরা মৃত্যুর আগ পর্যন্ত পৃথিবীতে মানুষ হিসেবে বেঁচে থাকব। আর, মৃত্যুর পর আমাদের জন্য একটি চমৎকার ভবিষ্যত অপেক্ষা করছে।

আমার পিতার বাড়িতে অনেক বাসস্থান আছে, যদি না থাকতো, তোমাদেরকে বলতাম; কেননা আমি তোমাদের জন্য স্থান প্রস্তুত করতে যাচ্ছি। আর আমি যখন যাই ও তোমাদের জন্য স্থান প্রস্তুত করি, তখন পুনর্বার আসবো এবং আমার কাছে তোমাদেরকে নিয়ে যাব; যেন, আমি যেখানে থাকি, তোমরাও সেখানে থাক। ইউহোন্না 14:2-3 BACIB

আল্লাহ্ আমাদের ভিতরে বাস করেন

যাঁকে আমি পিতার কাছ থেকে তোমাদের কাছে পাঠিয়ে দেব, সত্যের সেই রূহ্‌, যিনি পিতার কাছ থেকে বের হয়ে আসেন — যখন সেই সহায় আসবেন — তিনিই আমার বিষয়ে সাক্ষ্য দেবেন। ইউহোন্না 15:26 BACIB

আপনি যদি ঈসা মসীহে বিশ্বাস করেন এবং তাঁর ক্ষমা গ্রহণ করেন, তাহলে আল্লাহর পবিত্র আত্মা আপনার হৃদয়ে বাস করতে আসবেন এবং তিনি আপনাকে আল্লাহর ইচ্ছা অনুযায়ী জীবনযাপন করতে সাহায্য করবেন।

বিচার

তবে এই সুখবরের আরেকটি দিকও রয়েছে। একদিন ঈসা পৃথিবীতে ফিরে আসবেন সমস্ত মানুষকে তাদের কাজ এবং আচরণের ভিত্তিতে বিচার করতে। আল্লাহ্ কোন পাপ উপেক্ষা করতে পারেন না।

আর সমস্ত জাতির কাছে সাক্ষ্য দেবার জন্য বেহেশতী-রাজ্যের এই সুসমাচার সারা দুনিয়ায় তবলিগ করা যাবে; আর তখন শেষ সময় উপস্থিত হবে। মথি 24:14 BACIB

আমরা আগে দেখেছি যে কেউ আল্লাহর সামনে দাঁড়াতে পারবে না, যতক্ষণ না ঈসার জীবনধারা অনুসরণ করে।

যে কেউ পুত্রের উপর ঈমান আনে, সে অনন্ত জীবন পেয়েছে; কিন্তু যে কেউ পুত্রকে অমান্য করে, সে জীবন দেখতে পাবে না, কিন্তু আল্লাহ্‌র গজব তার উপরে অবস্থিতি করবে। ইউহোন্না 3:36 BACIB

যারা তাঁর পরিত্রাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করতে অস্বীকার করে, তাদের পাপ এবং স্বার্থপর আচরণের জন্য শাস্তি ভোগ করতেই হবে।

কেননা যে কেউ তার প্রাণ রক্ষা করতে ইচ্ছা করে, সে তা হারাবে, আর যে কেউ আমার জন্য তার প্রাণ হারায়, সে তা পাবে। বস্তুতঃ মানুষ যদি সারা দুনিয়া লাভ করে নিজের প্রাণ হারায়, তবে তার কি লাভ হবে? কিংবা মানুষ নিজের প্রাণের পরিবর্তে কি দেবে? কেননা ইবনুল-ইনসান তাঁর ফেরেশতাদের সঙ্গে তাঁর পিতার প্রতাপে আসবেন, আর তখন প্রত্যেক ব্যক্তিকে তার কাজ অনুসারে প্রতিফল দেবেন। মথি 16:25-27 BACIB

আবার বেহেশতী-রাজ্য এমন একটি টানা জালের মত, যা সাগরে ফেলে দেওয়া হলে তাতে সব রকম মাছ ধরা পড়লো। জালটা পরিপূর্ণ হলে লোকে কূলে টেনে তুললো, আর বসে বসে ভালগুলো সংগ্রহ করে পাত্রে রাখল এবং মন্দগুলো ফেলে দিল। যুগের শেষ সময়ে এরকম হবে; ফেরেশতারা এসে ধার্মিকদের মধ্য থেকে দুষ্টদেরকে পৃথক করবেন এবং তাদেরকে অগ্নিকুণ্ডে ফেলে দেবেন; সেই স্থানে কান্নাকাটি করবে ও যন্ত্রণায় দাঁতে দাঁত ঘষবে। মথি 13:47-50 BACIB

আপনার পদক্ষেপ

যে তাঁতে ঈমান আনে, তার বিচার করা যায় না; যে ঈমান আনে না, তাঁর বিচার হয়ে গেছে, যেহেতু সে আল্লাহ্‌র এক জাত পুত্রের নামে ঈমান আনে নি। আর সেই বিচার এই যে, দুনিয়াতে নূর এসেছে এবং মানুষেরা নূর থেকে অন্ধকার বেশি ভালবাসলো, কেননা তাদের কাজগুলো মন্দ ছিল।  ইউহোন্না 3:18-19 BACIB 

এই অধ্যায়ে আমি আল্লাহর মহান পরিকল্পনা সম্পর্কে সংক্ষেপে ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করেছি। আমি বুঝতে পারছি যে আপনার এখনও প্রশ্ন আছে। এই পৃষ্ঠার নীচের প্রবন্ধগুলিতে বেশ কয়েকটি প্রশ্নের উত্তর দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও আপনি CHAT এর মাধ্যমে আপনার প্রশ্ন তুলে ধরতে পারেন (যদি আপনার দেশে তা সম্ভব হয়ে থাকে)।

আমি আশা করি এটা স্পষ্ট যে আপনার প্রতি আল্লাহর সীমাহীন ভালবাসা রয়েছে। তিনি আপনাকে এত ভালবাসেন, যে তিনি মানুষ হয়ে তাঁর পুত্র ঈসা মসীহের মধ্য দিয়ে নিজেকে নত করেছিলেন। তিনি নিজেকে কষ্টভোগ করতে দিয়েছেন এবং একটি ক্রুশে পেরেক বিদ্ধ হতে দিয়েছেন, সেখানে তিনি আপনার পাপের শাস্তি বহন করার জন্য মারা গিয়েছিলেন। তিনি আপনার এবং আমার প্রতি ভালবাসার জন্য এটি করেছিলেন, কারণ তিনি আমাদের সাথে তাঁর বন্ধুত্ব পুনরুদ্ধার করতে চান।

আমি আপনাকে পরবর্তী অধ্যায়টি পড়ার জন্য আমন্ত্রণ জানাতে চাই, যেখানে আপনাকে আপনার জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিতে বলা হবে।

ঈসা কি সত্যিই ক্রুশে মারা গিয়েছিলেন?
ঈসার জীবন
অন্য কেউ কি ক্রুশে মারা গিয়েছিল?
একই আল্লাহ্, বিভিন্ন নাম?
আল্লাহ্ কি মরতে পারেন?

ঈসা কি সত্যিই ক্রুশে মারা গিয়েছিলেন?
ঈসার জীবন
অন্য কেউ কি ক্রুশে মারা গিয়েছিল?
আল্লাহ্ কি মরতে পারেন?
কিতাবুল মোকাদ্দস কে লিখেছেন?

.

  1. রোমীয় 3:23 BACIB
  2. রোমীয় 6:23 BACIB
  3. রোমীয় 2:5-6 BACIB
  4. এই ভবিষ্যদ্বাণীগুলি প্রায় 2,000 বছর আগে পূর্ণ হয়েছিল। এবং তিনি শুধু কোন পরিত্রাতা ছিলেন না। ঈশ্বর নিজেই তাঁর পরিত্রাণের পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য পৃথিবীতে এসেছিলেন।: তবুও আমরা পরিপক্কদের মধ্যে জ্ঞানের কথা বলছি, কিন্তু সেই জ্ঞান এই যুগের নয় এবং এই যুগের শাসনকর্তাদেরও নয়, এরা তো ক্ষমতাশূন্য হয়ে পড়ছেন। কিন্তু আমরা আল্লাহ্‌র সেই নিগূঢ়তত্ত্বরূপ জ্ঞানের কথা বলছি, যা গুপ্ত ছিল, যা আল্লাহ্‌ আমাদের মহিমার জন্য যুগপর্যায়ের পূর্বেই নির্ধারণ করেছিলেন। এই যুগের শাসনকর্তাদের মধ্যে কেউ তা জানেন নাই; কেননা যদি জানতেন, তবে মহিমার প্রভুকে ক্রুশে দিতেন না। কিন্তু, যেমন লেখা আছে, “চোখ যা দেখে নি, কান যা শোনে নি এবং মানুষের হৃদয়াকাশে যা ওঠে নি, যারা তাঁকে মহব্বত করে, আল্লাহ্‌ তাদের জন্য তা প্রস্তুত করে রেখেছেন।”. ১ করিন্থীয় 2:6-9 BACIB 
  5. ইউহোন্না 1:14 BACIB
  6. মথি 1:18 BACIB
  7. আর ঈসা নিজে যখন কাজ আরম্ভ করেন, তখন প্রায় ত্রিশ বছর বয়স্ক ছিলেন; লূক 3:23 BACIB
  8. “প্রভুর রূহ্‌ আমার মধ্যে অবস্থিতি করেন, কারণ তিনি আমাকে অভিষিক্ত করেছেন, দরিদ্রদের কাছে সুসমাচার তবলিগ করার জন্য; তিনি আমাকে প্রেরণ করেছেন, বন্দীদের কাছে মুক্তি, এবং অন্ধদের কাছে দৃষ্টিদান ঘোষণা করার জন্য, নির্যাতিতদেরকে নিস্তার করে বিদায় করার জন্য, প্রভুর রহমতের বছর ঘোষণা করার জন্য”। লূক 4:18-19 BACIB 
  9. ইশাইয়া 35:5-6 BACIB
  10. কিন্তু যদিও তিনি তাদের সাক্ষাতে এত চিহ্ন-কাজ করেছিলেন, তবুও তারা তাঁর উপর ঈমান আনলো না; ইউহোন্না 12:37 BACIB
  11. ইউহোন্না 6:28-29 BACIB
  12. ঈসা তাকে বললেন, আমিই পথ ও সত্য ও জীবন; আমার মধ্য দিয়ে না আসলে কেউ পিতার কাছে আসতে পারে না। ইউহোন্না 14:6 BACIB
  13. আর তিনি কৈফাকে, পরে সেই বারোজনকে দেখা দিলেন; তারপর একেবারে পাঁচশোর বেশী ভাইকে দেখা দিলেন, তাদের অধিকাংশ লোক এখন পর্যন্ত বেঁচে রয়েছে, কিন্তু কেউ কেউ ইন্তেকাল করেছে। ১ করিন্থীয় 15:5-6 BACIB