অধ্যায় ৪ ~ আমরা সিদ্ধান্ত নিতে পারি

সৃষ্টিকর্তা কেন সব কিছু সৃষ্টি করেছেন? অন্তহীন মহাবিশ্ব দেখায় যে সৃষ্টিকর্তা কত মহান এবং শক্তিশালী। আরো আছে। জীবিত গাছপালা, প্রাণী এবং মানুষ দিয়ে পৃথিবী সৃষ্টি করার পরে তিনি থামতে পারতেন। কিন্তু তিনি থামেননি। তিনি মানুষকে সিদ্ধান্ত নেবার ক্ষমতা দিয়েছেন।

স্রষ্টা তার সৃষ্টিতে একটি বিশেষ উপাদান যোগ করেছেন। তিনি লোকদের যেকোন একটি সিদ্ধান্ত নেবার ক্ষমতা দিয়েছেন। হয় সৃষ্টিকর্তাকে সম্মান করবে ও ভালবাসবে অথবা তারা তাদের ইচ্ছামত চলবে এবং সৃষ্টিকর্তাকে উপেক্ষা করবে। আপনি এবং আমি চাইলে মেনে নিতে পারি যে আমাদের সৃষ্টি করা হয়েছে। আমরা এর প্রশংসা করতে পারি এবং আমাদের সৃষ্টিকর্তাকে বিষয়টি জানাতে পারি। আবার, আপনি স্রষ্টার অস্তিত্বকে উপেক্ষাও করতে পারেন এবং আপনার পছন্দমত জীবনযাপন করতে পারেন অথবা অন্য লোকদের সিদ্ধান্তেও চলতে পারেন যেখানে তারা নির্ধারণ করবে আপনার জীবনে কোনটি সঠিক এবং কোনটি ভুল।

সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত

আপনি আজ কি সিদ্ধান্ত নিয়েছেন? আপনার কাছে এই সিদ্ধান্ত গুরুত্বহীন বলে মনে হতে পারে কিন্তু বেশিরভাগ সময় এরকম সিদ্ধান্ত বেশ পরিবর্তন ঘটিয়ে থাকে। সোভিয়েত বিমান বাহিনীর একজন লেফটেন্যান্ট স্ট্যানিস্লাভ পেট্রোভের গল্প শুনুন। পেট্রোভ যদি সেভাবে কাজ না করতেন, তাহলে যুক্তরাষ্ট্র ও সোভিয়েত ইউনিয়নের মধ্যে পারমাণবিক যুদ্ধের সম্ভাবনা থাকত। এতে পুরো পৃথিবী ধ্বংস হয়ে যেতে পারতো।

২৬শে সেপ্টেম্বর, ১৯৮৩, পেট্রোভ কর্মস্থলে ছিলেন। তার কাজ ছিল সোভিয়েত সতর্কতা ব্যবস্থা পর্যবেক্ষণ করা। বেশ কিছু অ্যালার্মে সমস্যা দেখা দিয়েছিল এবং সংকেত দিয়েছিল যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে সোভিয়েতের উদ্দেশ্যে মিশাইল নিক্ষেপ করা হয়েছে। এক্ষেত্রে, পেট্রোভের কাজ ছিল পাল্টা মিশাইল নিক্ষেপ করা। কিন্তু তিনি অনুভব করেছিলেন যে কোন ভুল হচ্ছে এবং সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন যে তার ঊর্ধ্বতনদের বিষয়টি জানাবেন না। তিনি বুঝতে পেরেছিলেন, যদি তিনি তা করেন তবে বিশ্বের জন্যে এটি ভয়াবহ পরিণতি হবে।

আমি শেষ অবস্থায় একটি মিথ্যা অ্যালার্মের মত পরিনতি থেকে ঘুরে দাড়িয়েছি। পেট্রোভের আদেশ অমান্য করার সিদ্ধান্ত কেবল তার নিজের দেশকে নয় বরং পুরো বিশ্বকে রক্ষা করেছিল।

আপনি দেখুন, কিভাবে একটি ছোট সিদ্ধান্তের পরিণতি এত বড় হতে পারে। শুধু নিজের জন্য নয়, আপনার চারপাশের মানুষের জন্যও।

সৌভাগ্যবশত, আপনার দৈনন্দিন সিদ্ধান্তের বেশিরভাগেরই এমন গুরুত্বপূর্ণ পরিণতি হয় না। কিন্তু, আমরা সকলেই একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তের মুখোমুখি হই যা আমাদের জীবন ও ভবিষ্যৎ নির্ধারণ করবে। আপনার জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত হল এটি স্বীকার করা যে একজন সৃষ্টিকর্তা আছেন কিনা। সৃষ্টিকর্তার অস্তিত্বকে উপেক্ষা করলে তাৎক্ষণিকভাবে দৃশ্যমান কোনো পরিণতি দেখা যাবে না। পৃথিবী শেষ হবে না। কিন্তু, আপনার সিদ্ধান্তই আপনার ভবিষ্যত নির্ধারণ করে এবং সম্ভবত অন্যদেরও।

প্রতিটি মানুষ জন্মগ্রহণ করে, যার কারণে সবার মা আছে। আপনি যদি তাকে উপেক্ষা করেন, অস্বীকার করেন এবং অস্বীকার করেন যে আপনি তার কাছে ঋণী তাহলে আপনার মার কেমন লাগবে? আপনি আপনার মাকে উপেক্ষা করলেও আপনার জন্মের সত্যতা পরিবর্তন হয়ে যাবে না।

আপনি যদি সৃষ্টিকর্তাকে উপেক্ষা করতে চান তাহলে তাঁর কেমন অনুভব হয়?

আপনি কি এতিম হয়ে বাঁচতে চান? নাকি আপনাকে যিনি সৃষ্টি করেছেন তাঁর সম্পর্কে আরও আবিষ্কার করতে চান? আপনি কিভাবে আরো শিখতে পারেন? কেন তিনি আপনাকে ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত নেয়ার স্বাধীনতা দিয়েছেন?

blank

যদি আপনি সৃষ্টিকর্তাকে দেখতে পারতেন

কিভাবে আমরা আমাদের সৃষ্টিকর্তা সম্পর্কে আরও আবিষ্কার করতে পারি? আমরা তাঁকে দেখতে পারি না এবং তাঁর আকাঙ্খার বিষয়ে প্রশ্নও করতে পারি না।

আমরা কেন তাঁকে দেখতে পারি না তার অনেকগুলি কারণ রয়েছে৷ প্রথমত, তিনি কোন সৃষ্টি নন, বরং তিনি নিজেই সৃষ্টিকর্তা। আপনি কল্পনা করতে পারেন, তিনি আমাদের চারপাশে রূহানিক সত্তা হিসেবে আছেন।

আমাদের স্বাধীনতার সাথে আরেকটি কারণ জড়িত। আপনি যদি সর্বদা তাকে দেখতে পান, আপনি কি তখনও আপনার নিজের পছন্দ মত সিদ্ধান্ত নিতে সক্ষম হবেন? আপনি কি করবেন, যদি আপনি সবসময় স্রষ্টাকে দেখতে পান এবং জানেন যে তিনি আপনার সমস্ত কাজ দেখছেন? আপনি কি তখনও তাকে উপেক্ষা করতে সক্ষম হবেন? সেক্ষেত্রে, তাঁর অনিচ্ছায় কিছু করা বোকামি অথবা মূর্খতা হবে।

যদি আপনার ভুল তৎক্ষনাত সংশোধিত না হয় শুধুমাত্র তখনই আপনি আপনার নিজের পছন্দ মত সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন। আপনাকে ভুল করতে দেওয়া হলেই আপনি শিখতে পারবেন। সিদ্ধান্তের স্বাধীনতা ব্যতীত, আপনাকে যা বলা হবে আপনি তাই করবেন। একদম পশুদের মত, যে শুধুমাত্র সভাব অনুযায়ী প্রতিক্রিয়া করে থাকে।

প্রতিদিন আমি আবিষ্কার করি, সিদ্ধান্ত নেয়া সহজ বিষয় নয়। অনেক চ্যালেঞ্জ আছে। একটি সুবিধা আছে, এইভাবে জীবন কখনই বিরক্তিকর বা অনুমানযোগ্য হয়ে ওঠে না। অনেক চ্যালেঞ্জ জীবনকে বেঁচে থাকার যোগ্য করে তোলে। যখন আমি একটি চ্যালেঞ্জ কাটিয়ে উঠি, আমি কিছু শিখি। কিন্তু ভুল সিদ্ধান্ত অনেক দুঃখের কারণ হতে পারে। আমি প্রায়ই ভুল সিদ্ধান্ত নিয়েছি, যা অন্য লোকেদের ক্ষতি করেছে এবং অনেক কষ্ট দিয়েছে। সেগুলি এমন ভুল ছিল যেগুলির জন্য আমি এখনও লজ্জিত, আর ওই ভুলগুলি আর ঠিক করা যাবে না।

আমাদের পছন্দমত সিদ্ধান্তের স্বাধীনতা শুধুমাত্র আমাদের চারপাশের মানুষদের সাথে জড়িত নয়, তার থেকেও বেশি কিছু। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত হল আপনি আপনার সৃষ্টিকর্তা সম্পর্কে কি ভাবছেন। আপনি যদি স্বীকার করেন যে তিনি আছেন এবং তিনি আপনাকে সৃষ্টি করেছেন, তাহলে পরবর্তী প্রশ্ন হল আপনি তাকে সম্মান করেন কিনা। তার জন্য, আপনাকে অবশ্যই তাঁর কাছে যা গুরুত্বপূর্ণ তা আবিষ্কার করতে ইচ্ছুক হতে হবে। এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজে বের করা আপনার বিষয়। আপনি যে সংস্কৃতিতে বড় হয়েছেন বা আপনার চারপাশের লোকেরা যে সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকে সেই অনুযায়ী উত্তর আসা উচিত নয়। সৃষ্টিকর্তা সম্পর্কে আপনার চিন্তার জন্য ব্যক্তিগতভাবে আপনি নিজেই দায়ী।

এমনকি যদি আপনি জেনেও থাকেন যে একজন স্রষ্টা আছেন, তারপরও এটিকে অস্বীকার করা মানুষের হাতেই থাকে। বেশিরভাগ সময় আমরা আমাদের ইচ্ছামত চলি অথবা অন্যদের নির্ধারণ করতে দিই আমাদের জীবন কেমন হওয়া উচিত। আমরা জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত সম্পর্কে সচেতনভাবে চিন্তা করতে ভুলে যাই।

আপনার জীবনের উদ্দেশ্য কি?

এখন আপনি জানেন যে একজন স্রষ্টা রয়েছে, তাহলে কি জানতে চান কেন তিনি আপনাকে সৃষ্টি করেছেন? আপনি কি মনে করেন এটা শুধুমাত্র তাঁর নিজের সন্তুষ্টির জন্য ছিল নাকি মনে করেন যে আপনি আপনার জীবন নিয়ে কি করছেন তাতে তাঁর কিছু যায় আসে না? তিনি কি আপনার কাছে কিছু আশা করেন?

আপনি কি মনে করেন যে আপনি সব ধর্ম থেকে একটি উত্তর খুঁজে পেতে পারেন? বেছে নেওয়ার জন্য ৪,০০০ টিরও বেশি ধর্ম রয়েছে। আমরা কেন বিদ্যমান এই প্রশ্নের উত্তর অধিকাংশ ধর্মেই রয়েছে। সব ধর্মই স্রষ্টার আলাদা ছবি আঁকে এবং কিছু ধর্মে একাধিক দেবতাও রয়েছে। প্রায় সব ধর্মই জীবনের উদ্দেশ্য সম্পর্কে ভিন্ন ভিন্ন উত্তর দেয়।

কিছু লোক মনে করে যে, প্রতিটি ধর্মই স্রষ্টার পরিচয় তুলে ধরে। যেমন করে আপনি একজন ব্যক্তিকে বিভিন্ন কোণ থেকে দেখতে পান। এটা কি সম্ভব যে সব ধর্মই সত্য তুলে ধরে? দুর্ভাগ্যবশত, এটা অসম্ভব। সৃষ্টি ও স্রষ্টা সম্পর্কে বিভিন্ন ধর্মের সম্পূর্ণ পরস্পরবিরোধী ব্যাখ্যা রয়েছে। বিশেষ করে জীবনের উদ্দেশ্য নিয়ে নানা মত রয়েছে। সম্মুখে এগিয়ে যেতে হলে আমাদের অবশ্যই পরম সত্যের সন্ধান করতে হবে।

বেছে নেবার স্বাধীনতার মাধ্যমে আমাদের শুধু এটি স্বীকার করলেই চলবে না যে একজন সৃষ্টিকর্তা রয়েছেন। আপনাকে সৃষ্টিকর্তা সম্পর্কে সত্যতা খুঁজে বের করতে হবে। সৃষ্টিকর্তার প্রতিচ্ছবি কি সত্য?

blank

সত্য কি?

সৃষ্টিকর্তা নিজেই একমাত্র সত্য। আমরা তাঁর যেমন প্রতিচ্ছবি তৈরি করি তার উপর তিনি নির্ভরশীল নন। তাঁর সম্পর্কে সত্যতা একটি সংস্কৃতি বা ধর্ম দ্বারা নির্ধারিত হতে পারে না। উৎসের কাছে যেতে হবে।

আমরা কিভাবে সত্য আবিষ্কার করতে পারি?

সৃষ্টিকর্তা কে এবং কেন তিনি আমাদের তৈরি করেছেন?

T0805